1. admin@shadin-bd.com : admin :
  2. unews.mahmud@gmail.com : Mahmud hasan : Mahmud hasan
সোমবার, ০৪ মার্চ ২০২৪, ০৩:৩৪ পূর্বাহ্ন
শিরোনামঃ -
উত্তরা পাবনা সোসাইটির সভাপতি, ড.আমিন উদ্দিন, নির্বাহী সভাপতি বাবুল ও সাধারণ সম্পাদক, মিঠু কাপাসিয়া মডেল সরকারি বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক শাহেলী নাছরিনের যোগদান প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়নে তৎপর খসরু চৌধুরী গলদাপাড়া নিয়ামত আলী উচ্চ বিদ্যালয় ও প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক  অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত।  শ্রীপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের হাসপাতাল ব্যবস্থাপনা কমিটির সভায় প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী দূর্গাপুরে দুটি গ্রামীণ রাস্তার ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন উত্তরা ১৩ সোসাইটি নির্বাচন: সভাপতি ব্রিগেডিয়ার জাহিদ সেক্রেটারি শাহনাজ পান্না কাপাসিয়ায় খামারিদের মাঝে বিনামূল্যে মিল্কিং মেশিন বিতরণ ব্রাহ্মণবাড়িয়া ট্রাক অটোরিকশা মুখোমুখি সংঘষে নিহত -২ পত্নীতলায় জাতীয় ভোটার দিবস পালন

কিশোরগঞ্জের ভৈরবে রঙ্গিন ফুল কপির আবাদ করে লাভবান স্কুল শিক্ষক।

  • প্রকাশের সময় : সোমবার, ৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪
  • ৫৫ বার পঠিত

নূরুন্নাহার নূর তাড়াইল,কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধিঃ

শহিদুল ইসলাম শাহিন,পেশায় তিনি একটি প্রাইমারী স্কুলের শিক্ষক। তিনি শিক্ষকতার পাশাপাশি একজন সফল কৃষকও। রবি মৌশুম এলেই তিনি চিন্তা করেন বিরল জাতীয় কিছু চাষাবাদ করার। এ বছর তিনি ২ হাজার রঙ্গিন ফুল কপি চাষ করে এলাকায় তাক লাগিয়ে দিয়েছেন। তার জমিতে হলুদ বেগুনি রংয়ের ফুলকপি দেখতে প্রতিদিনই মানুষ আসছেন। রং বেরংয়ের ফুল কপি চাষ করে অনেক টাকা লাভবান হবেন বলে আশাবাদী কৃষক সহিদুল ইসলাম শাহিন। রঙ্গিন কপি চাষাবাদে লাভবান হওয়ায় আগ্রহী হয়ে উঠছেন এখানকার কৃষকরা বলছেন কৃষি অফিসার আকলিমা বেগম,

ভৈরব উপজেলার কালিকাপ্রসাদা ইউনিয়নের আদর্শপাড়া গ্রামের সহিদুল ইসলাম শাহিন তার ১৭ শতক জমিতে এই প্রথম আবাদ করেছেন হলুদ আর বেগুনী রংয়ের ফুলকপি। ফলন আসা পর্যন্ত খরছ হয়েছে তার মাত্র ১০ হাজার টাকা। চারা রোপনের ৭৫ দিনের মাথায় বিক্রির উপযোগী হয়ে উঠেছে রঙ্গিন এ ফুলকপি। এ কৃষক এখন পর্যন্ত প্রায় ৩০ হাজার টাকার ফুলকপি বিক্রি করেছেন। যে পরিমান ফুলকপি জমিতে রয়েছে সেগুলো বিক্রি করতে পারবে প্রায় ১ লাখ টাকার মত। সমস্থ খরছ বাদ দিয়ে তার আয় হবে কমপক্ষে ৮০ থেকে ৯০ হাজার টাকা। এই কপি চাষে রাসায়নিক সার ও ক্ষতিকর কীটনাশক ব্যবহার না করায় এটা সম্পূর্ণ নিরাপদ। এলাকাতে নতুন ফসল হওয়ায় স্বাভাবিক কারণেই এটার চাহিদা অনেক বেশি। এ ফুলকপিগুলো তার জমি থেকেই বেশির ভাগ বিক্রি হচ্ছে। পাশাপাশি স্থানিয় বাজারগুলোতে বিক্রি করেও পাশর্^বর্তী বিভিন্ন উপজেলার হাট বাজারেও বিক্রি করছেন। আগামীতে এখানকার অনেক কৃষক অন্যান্য সবজির পাশাপাশি বাহারী রংয়ের ফুলকপি চাষ করবেন বলে ইচ্ছা পোষন করছেন। রঙ্গিন ফুল কপির বীজ পাওয়াটা সহজলভ্য হলে আগামীতে এর চাষাবাদা আরো বৃদ্ধি পাবে।

ভৈরব উপজেলা কৃষি অফিসার আকলিমা বেগম বলেন, সহিদুল ইসলাম শাহিন একজন শিক্ষক হয়েও তার নিজের জমিতে সব সময় উন্নৎ জাতের কিছু একটা সবজি চাষ করে থাকেন। গত বছর এ জমিতেই তিনি ক্যাপসিকাম চাষ করে লাভবান হয়েছেন। এ বছরও তিনি প্রথম বারের মত আবাদ করেছেন হলুদ আর বেগুনী রংয়ের ফুল কপি। অন্যান্য ফুল কপির তুলনায় এগুলো কালার ফুল হওয়াতে মানুষের কাছে এটা খুব আকর্ষনী এবং বাজারে এর চাহিদাও খুব বেশি। এ ফুলকপি পুষ্টিগুন মানসম্মত হওয়ায় এখানকার কৃষকরা ফুলকপি চাষাবাদে খুবই আগ্রহী হয়ে উঠছে। আমরা আশা করছি আগামী রবি মৌশুমে এর আবাদ আরো বৃদ্ধি পাবে। হলুদ ও বেগুনী রংয়ের এ ফুলকপিতে ভিটামিন আর ফলিগ এসিড থাকার কারণে এন্টি অক্সিজেনেরও কাজ করে শরীরে এবং এটা খুব পুষ্টিগুন সমৃদ্ধ।

কৃষকদের জন্য দুষ্প্রাপ্য রঙ্গিন ফুল কপির বীজগুলো যদি কৃষি অফিসের মাধ্যমে প্রনোদনা দেয়া হয় তাহলে এ অঞ্চলে রঙ্গিন কপির চাষাবাদে কৃষকদের মাঝে আগ্রহ বাড়বে মিটবে পরিবারের পুষ্টির চাহিদা এমনটাই মনে করছেন স্থানিয়রা।

Facebook Comments Box
এই জাতীয় আরও খবর
© স্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৮ স্বাধীন বিডি
Theme Customized By Shakil IT Park